শিবলী হাসান-এর ব্লগ

প্রিন্ট প্রকাশনা

আল-জাজিরা ও ইকোনমিষ্ট এর প্রতিবেদন এবং যুদ্ধাপরাধ প্রসঙ্গ

লিখেছেন: শিবলী হাসান

”’১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা এ দেশটাকে পেয়েছি । ৩০ লক্ষ শহীদ ও ২ লক্ষ মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এ মানচিত্রটা পেয়েছি ”’। বাহ ! কি চমৎকার দুটি লাইন । এই দুই লাইনের মধ্যেই আমাদের বীরত্ব গাঁথা ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটকে ধারণ করে ফেললাম । স্বাধীনতা ও বিজয়কে এই দুইটি লাইন দ্বারাই তো শেষ করা যায় , তাই এত কিছু বলার দরকার পরে কি ? এই মতগুলো আমার না কিন্তু আমার বয়সী অনেক তরুণ-তরুণীরাই এই ধারণাগুলো পোষণ করে সেটা জেনেই হোক আর না জেনেই হোক । জেগে জেগে যারা ঘুমাচ্ছে তাদেরকে জাগানো আমার পক্ষে তো সম্ভবই না অন্য কারো পক্ষে কিভাবে সম্ভব হবে সেটাও আমার বোধগম্য নয়। তবে যারা না জেনে এই অন্ধকার ঘোরের মধ্যে আছে তাদের সামনে সঠিক ইতিহাস তুলে না ধরলে তারাও একসময় ভুল পথের পথিক হয়ে যাবে । আসলে এই দুই লাইনের মধ্যেই যে লুকিয়ে আছে নির্মম সত্যের এক মর্মন্তুদ ইতিহাস সেই সত্য তাদের সামনে উন্মোচন না করলে একসময় তা মিথ্যার তলে চাপা পড়ে যাবে ।

১৯৭১ সালে পাকবাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসররা ধর্মের নামে এই দেশে চালিয়েছে ভয়ংকর নারকীয় হত্যাযজ্ঞ। ধর্মের দোহাই দিয়ে ভাইয়ের সামনে বোনকে এমনকি ছেলের সামনে মাকে ধর্ষণ করতেও ওই বেজন্মাদের একটুও বাঁধে নি । যেখানেই ধর্ম প্রসঙ্গ এসেছে সেখানেই তারা বলেছে — ” বিধর্মীদের সাথে ছহবত করলে গুনাহ হয় না , ওরা হইল গনিমতের মাল । আর যুদ্ধের ময়দানে ইসলাম ( পাক স্তান) কে রক্ষা করার জন্য জেনা করাও জায়েজ । ” যদিও এখন পর্যন্ত কোথাও কেউ খুঁজে পায়নি কোরআন শরিফের কোথায় এগুলো কে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে । নরপিশাচদের এইসব নারকীয় গণহত্যা সংগঠনের গা কাঁপানো রূপ সানডে টাইম্‌স এর মাধ্যমে যখন বিশ্ববাসী প্রত্যক্ষ করেছিল তখন তাদেরও স্মৃতির কুহরে আতংক তোলপাড় করে উঠেছিল , গা শিউরে উঠেছিল ।
তাই ৭১ এর সেই ধারনাকে পোষণ করতে হবে আমাদের চেতনাতে আর সেটাকে লালন করার পদক্ষেপ যদি আমরা নেই তাহলে প্রথমেই আমাদের যে কাজটি করতে হবে তা হল যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে জাতিকে কলংক মুক্ত করা । আর সেই মহান ও গুরুদায়িত্বটুকু আমরা দিয়েছে বর্তমান সরকারের হাতে। এই বিচার সম্পন্ন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বলেই আমরা এই রাজনৈতিক দলটিকে ভোট দিএ ক্ষমতাই এনেছিলাম । কিন্তু সরকার বিচারকার্যে যেই হাত দিয়েছে সাথে সাথেই শুরু হয়ে গেছে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্ত । প্রসঙ্গত কয়েকটি বিষয় লক্ষণীয় ———————

কিছুদিন আগে গু আযম কে নিয়ে একটি ৭ মিনিটের ভিডিও চিত্র বের হয় যেটাতে ওই রাজাকার কে দেখানো হয়েছে একজন মহান রাজনৈতিক নেতা এবং সেই ভিডিওটিতে তার পক্ষে জোর সাফাই গাওয়া হয় । এবং ভিডিও টি মধ্যপ্রাচ্যে খুব প্রচার দেওয়া হয়। ঠিক তার কিছুদিন পর আমরা দেখলাম কাতারভিত্তিক টিভি চ্যানেল আল জাজিরার প্রতিবেদন ।

আলজাজিরার প্রতিবেদক নিকোলাস হক তার প্রতিবেদন এ বলে যে ”” বাংলাদেশের সাবেক রাজনীতিবিদ গোলাম আযম ৪০ বছরেরও বেশি সময় আগে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধে বিচারের মুখোমুখি। ৮৯ বছর বয়সী গোলাম আযম হাঁটতে পারেন না, দেখতে পান না, এমনকি শুনতেও পান না”’ হা হা হা !! কি সুন্দর কাল্পনিক বানোয়াট একটা কথা । যে লোকটি কিছুদিন আগেও দেখলাম টিভি চ্যানেল এ বক বক করছে , নামায পরতে মসজিদ এ যাচ্ছে কিন্তু রিপোর্ট একি শুনাল , সে নাকি বয়রা !!! আরও অনেক সাংবাদিক আসবে , নতুন নতুন রিপোর্ট তৈরি করবে । এখন হইতবা বলবে নিযামি , মুযাহিদ সাকারা হাঁটতে পারে না , কানে শুনে না এমনকি এরা তো নপুংসক(!!!) ৭১ এ ধর্ষণ করবে কেমন করে ইত্যাদি ইত্যাদি …

এবং সবশেষে দুই একদিন আগে শুনলাম ইকোনমিষ্ট এর প্রতিবেদন যেটি উপরুক্ত প্রতিবেদনের ধারা থেকে বাইরে যেতে পারেনি । ইকোনমিষ্ট এর প্রতিবেদন শুনে বিরোধী দলেরও এত আনন্দে উদ্দাম নৃত্য কররা মত কিছু নেই । প্রতিবেদনটিতে খুব সুন্দরভাবে প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের সমালোচনা করার হয়েছে এবং ৭১ এর স্বাধীনতা বিরোধীদের পক্ষ অবলম্বন করা হয়েছে । কেননা এই নরপিশাচদের বিচারকে স্রেফ রাজনীতির বেড়াজালে আবদ্ধ করে প্রত্যক্ষ ভাবেই তাদের পক্ষ নেওয়া হয়েছে ।
তাই এখন সময় এসেছে আমাদেরও কিছু বলার — আলজাজিরা ইকোনমিষ্ট সহ তাবৎ মিডিয়া কে বলছি , সরকারের কাজের সমালোচনা করে রিপোর্ট প্রকাশ করুন সমস্যা নেই কিন্তু আপনাদের রিপোর্ট যখনি যুদ্ধাপরাধীদের সুরে গান ধরবে তখনি ওদের বিরদ্ধে সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে যাবে লক্ষ কোটি উদাহরন … গু আযম , নিযামি , মুযাহিদ এবং সাকাসহ সকল যুদ্ধাপরাধীদের ধ্বংসযজ্ঞের সাক্ষী আজও পাওয়া যাবে বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে , মহাকালের সাক্ষ্য হয়ে সারা বাঙলায় ছড়িয়ে থাকা গণকবরগুলোতে ,সন্তানহারা মায়ের অগ্নিদৃষ্টিতে , ভাইহারা বোনের আর্তনাদে , ধর্ষিতার রক্তেভেজা শাড়িতে ।

সবশেষে বলব যে , দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রের বেড়াজালে এক কঠিন সময়ে এসে আমরা দাঁড়িয়েছি । যার কাণ্ডারি কেবলমাত্র তরুণরাই । তাই আমার বিশ্বাস কাঁঠগড়ায় দাঁড়িয়ে প্রজন্ম অবশ্যই সৃষ্টিকে বেছে নেবে , ধংসকে নয়; জন্মকে বেছে নেবে, মৃত্যুকে নয়; স্বর্গকে বেছে নেবে , নরককে নয় । সকল গ্লানি এবং লজ্জা দূর করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে রাষ্ট্রকে কলংক মুক্ত করতে হবে ।। যেটার সঙ্গী হব আমি, আপনি , আমরা সকলেই ..

 

এ লেখার লিংক: http://projonmoblog.com/shiblee/235.html

 29 টি মন্তব্য

(ফোনেটিক বাংলায়) মন্তব্য করুন

  1. ইমরান এইচ সরকার

    সকল গ্লানি এবং লজ্জা দূর করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে রাষ্ট্রকে কলংক মুক্ত করতে হবে ।। যেটার সঙ্গী হব আমি, আপনি , আমরা সকলেই …

    সহমত

    1. শিবলী হাসান

      আমি মনে করি এই একটি বিষয়তে আমরা সকলেই একমত পোষণ করব । তবে পাকি ও ছাগুদের ব্যাপারটা আলাদা । যদিও আমি উল্লেখ করেছি 'যেটার সঙ্গী হব আমি, আপনি , আমরা সকলেই …' কিন্তু পাকি ও ছাগুদের ব্যাপারটা নিয়ে আমি নিশ্চিত যে তারা এটার সঙ্গী হবেনা ।।

      1. ইমরান এইচ সরকার

        যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ব্যাপারে কোন আপষ করতে আমি রাজী নই । অন্য বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে !!

        1. শিবলী হাসান

          'যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ব্যাপারে কোন আপষ করতে আমি রাজী নই ।' খুব ভাল লেগেছে কথাটা ।। ওরা যেন কোন ব্যাপারেই আমাদের কাছ থেকে বিন্দুমাত্র ছাড় না পায়

    2. romna take bolchi

      WE WILL DO BUT FRIST WE WILL RE UNITED ALL 71 PALTFROM . OUR NATION DIVIDED TWO OR THREE WAY . IT MAKE US BAD FELLING .
      THEY BELIVE BANGLADESHI PEOPLE ARE SLAVE . THEY BELIVE KING.
      AWMILIGE AND BNP WANT ONLY KEEP SIT THE ROLLER OF THE NATION.
      CAN WE THINK WHAT THEY DO ?
      TAKE THE NATION REAL WAY PROCIDE .

  2. নির্ঝর মজুমদার

    এমনই একটা রিপোর্ট, যেটাতে রিপোর্টারের কোন ধরনের ডেজিগনেশান এর উল্লেখ নাই। হে হে, এই রিপোর্টটা আবার স্পেশাল। খিকয। তেলাপোকাও তাইলে পাখি।

    1. শিবলী হাসান

      ধন্যবাদ ভাইয়া । ভাই কোন ডেজিগনেশান নাই … ধরে নিন যেটা লিখলাম সেটাই ডেজিগনেশান 'যুদ্ধাপরাধীদের বিচার' প্রত্যাশী এক তরুণ

      1. নির্ঝর মজুমদার

        ভাই, আমি আপনার লেখা ব্লগটার কথা বলিনি। আপনি ভুল বুঝেছেন। আমি ইকোনোমিষ্ট এর রিপোর্টটার কথা বলেছি।

        আর আপনার লেখাটা আসলেই খুবি ভালো হয়েছে।

        1. শিবলী হাসান

          আবারো ধন্যবাদ আমার ভুলটা ধরিয়ে দেওয়ার জন্য … আসলে বেশ কয়েকটা রিপোর্ট এর কথা উল্লখ করেছি তো তাই সব একসাথে মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে আর এইভেবে খারাপ লাগছে যে টাকার কাছে একজন সাংবাদিক তার সততা , নীতি সবকিছু এতসহজে কিভাবে বিকিয়ে দেয় … ওদেরকে কি সাংবাদিক বলব নাকি অন্য কিছু ।

          1. নির্ঝর মজুমদার

            ওদের সাংবাদিকও বলা যাবেনা, আর ইকনমিস্ত র ওইটারে কি জননও যে রিপোর্ট বলা যাবেনা, সেইটা তো আগেই বললাম।

            এরা হচ্ছে Propagandist। এদের সাথে journalist দের বিস্তর ফারাক।

  3. omipial

    অল্প কথায় মোটামুটি পরিস্থিতিটা ভালোমতো তুলে ধরা হয়েছে। আমি তো দোষ দেবো সরকারকে। যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনাল গঠনের পর থেকেই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি খেয়ে না খেয়ে অপপ্রচার করেই চলেছে, কিন্তু বিপরীতে সরকারের মধ্যে একটা গাছাড়া ভাব যেনো এসবে তাদের কিছুই এসে যায় না। অথচ বারবার প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের শিকার হচ্ছে তারা স্রেফ একটা কারণেই। সরকারের বোঝা উচিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারটা সুষ্টভাবে করতে পারলে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো উত্তুঙ্গে যাবে আওয়ামী লীগ যা মুক্তিযুদ্ধে রাজনৈতিক নেতৃত্বদানের মাধ্যমে সূচনা করেছিলো তারা। প্রতিটা অপপ্রচারের মোক্ষম জবাবের জন্য তৈরি থাকতে হবে সরকারকে। উদ্যোগটা নিতে হবে তাদেরকেই। অন্য কেউ করে দেবে এই আশায় না থাকাই ভালো

    1. শিবলী হাসান

      'আমি তো দোষ দেবো সরকারকে। যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনাল গঠনের পর থেকেই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি খেয়ে না খেয়ে অপপ্রচার করেই চলেছে, কিন্তু বিপরীতে সরকারের মধ্যে একটা গাছাড়া ভাব যেনো এসবে তাদের কিছুই এসে যায় না।'সহমত পোষণ করে একটি বিষয় উল্লেখ করছি …আলজাজিরা যখন এই ভিত্তিহীন রিপোর্টটি তৈরি করল তখনি সরকারের উচিত ছিল এর জবাব দেওয়া কিন্তু তারা তা করেনি । যার ফলে এই রিপোর্টটি তৈরির কিছু দিন পর সেই প্রতিবেদক নিকলাস হক ঢাকা পর্যন্ত এসেছে গু আযমকে নিয়ে আরও একটি রিপোর্ট তৈরি করবে বলে । সে এই দুঃসাহসটা দেখাতে পারতনা যদি প্রথম প্রতিবেদনটির পরেই সরকার কঠোর অবস্থানে গিয়ে সেই রিপোর্টটিকে চ্যালেন্জ করত। কিন্তু এই প্রতিবেদনটির দিকে সরকার কোন দৃষ্টিই দেয়নি । যা অত্যন্ত দুঃখজনক

  4. NLM

    এমনকি এরা তো নপুংসক(!!!) ৭১ এ ধর্ষণ করবে কেমন করে ইত্যাদি ইত্যাদি …

    loved these words :)

    1. শিবলী হাসান

      ভাই কি আর বলব বলেন … যেভাবে একের পর এক ফালতু রিপোর্ট দেখছি তাতে মনে হচ্ছে যে এই খবরগুলোও দেখব আর কিছুদিন পর ।। অপেক্ষাতে থাকুন অবশ্যই দেখবেন !!!

  5. Kazi Nazrul

    ইকোনমিষ্ট এর এই প্রতিবেদনা পড়ে আমার একটই কথা মনে হয়েছে, যেন আমাদের বিরোধীদলের কোন উঠতি নেতাকে বক্তব্য দিতে বলা হয়েছে,আর সে প্রথমবারের মতো তার নেত্রির সামনে বক্তব্য দিচ্ছে। তার হাতে যে ক্রিপটা আছে, সে তার কঁাচা হাতে লিখেছে নিজ নেত্রিকে খুশি করার জন্য। আর সে তার লেখা পড়ে নিজে নিজে পুলকিত হচ্ছে।

    একটা সময় ছিল (১৯৭২-১৯৭৫) যখন শিক্ষিত লোক কম ছিল। কিন্তু এখন সে সময় নই।এখন শিক্ষিতের হার বেড়েছে।এখন মানুষ আর বিভ্রান্ত হয়না এই প্রতিবেধন নিয়ে মানুষ আর চিন্তও করেনা।

    1. শিবলী হাসান

      ঠিক বলেছেন ভাই … আসলেই শিক্ষিতের হার বেড়েছে । মানুষ আর ভুল দ্বারা এখন বিভ্রান্ত হয়না

      1. mamun13

        আসলেই শিক্ষিতের হার বেড়েছে? recent incidents shows , some thing seriously wrong.

  6. rased kobir

    আসলে এই ব্লগ এ আমি নতুন আসলাম। আমার এক বন্ধু এই লেখাটা শেয়ার করেছে এবং সেটা পড়ার পর আমার এত ভাল লেগেছে যে বলে বুঝাতে পারবনা । তাই অ্যাকাউন্ট টাও খুললাম । আমি অবাক হয়ে যাই এতকিছুর পরেও ওদেরকে কিভাবে মানুষ সমর্থন দেয়? যারা এই সমর্থন দিচ্ছে ওইসব কুলাঙ্গার রাজাকারদের তারা কি চায়? ৭১ এর মত কি আবার ও তাদের মা বোন দেরকে ভাগাড়ে পাঠাতে চায় ? আবারও কি তাদের মা বোনদের পাকিস্তানিদের ক্যাম্পে দেখতে চায় ? আসলে কি চায় ওই জানোয়ারদের সমর্থনকারী নব্য রাজাকারেরা

    1. শিবলী হাসান

      প্রথমেই আপনাকে স্বাগতম এই ব্লগে ।' ৭১ এর মত কি আবার ও তাদের মা বোন দেরকে ভাগাড়ে পাঠাতে চায় ? আবারও কি তাদের মা বোনদের পাকিস্তানিদের ক্যাম্পে দেখতে চায় ?' একেবারে খাঁটি প্রশ্ন করেছেন । আমার কাছে যদি কেও জানতে চায় তবে এই প্রশ্নগুলোর উত্তর হবে হ্যাঁ সূচক ।

      1. imtiaz imon

        ami nijeo notun join korlam ei blog e. karon ei bloger lekha amar bhalo lage. r vai , amar to mone hoy tara tader maa bhone k bhagare pathabe ki, amar to mone hoy tara tader jonmo porichoyee janena. k tader maa , k tader baba. tara jodi shottie sheta jene thakto tahole to r ato jhamela hoto na. onek agey shob shomosshar shomadhan hoye jeto.

  7. Rudra Rajat

    আলজাজিরার প্রতিবেদনটা শুনার পর এত খারাপ লেগেছিল যা বলে বুঝাতে পারব না । আর এখন ইকোনমিষ্ট এর প্রতিবেদন দেখেতো মাথাটাই নষ্ট হওয়ার অবস্থা । সরকার এর কি এই বিষয়ে কোন মাথা ব্যথা নাই নাকি ? একের পর এক জামাতিদের টাকার মাধ্যমে রিপোর্ট হচ্ছে আর সরকার বসে বসে তা দেখছে । আসলে এই ধরনের বক্তব্য গুলো সরকারের নজরে আনা উচিত এখনি না হলে এমন এক সময় আসবে যে রাজাকার এই হয়ে যাবে মুক্তিযুদ্ধা !!! সবশেষে লেখাটার জন্য লেখককে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি

    1. শিবলী হাসান

      ভাই এই কথাটা ঠিক এই বলেছেন এই বিষয়গুলো নজরে আনা উচিত কিন্তু আনবে কে? … তাই এই ব্লগের লেখা ব্লগ এই সীমাবদ্ধ থাকে । সরকারের কান পর্যন্ত যায় না

    2. romna take bolchi

      YAH ITS FELL BAD

  8. Shamol Nandail

    আসলেই কতটুকু আমরা তরুণ সমাজ জানি ৭১ সম্পর্কে । শুধু তাইনা এই রিপোর্ট গুলো সম্পর্কেও তো আমরা খুব একটা সচেতন না । ধন্যবাদ শিবলী এই লেখাটির জন্য

    1. শিবলী হাসান

      কিন্তু এখন সময় এসেছে জানার না হলে দেশবিরোধী ৭১ এর ঘাতকরা আবার তাদের নতুন মিশন নতুনভাবে শুরু করবে । তাই আমাদের সচেতন থাকতে হবে সব সময়ই ।

  9. রায়হান রশিদ

    লেখকের সাথে একমত। গত মার্চ মাসে মুক্তাঙ্গনে আল-জাজিরার বিষয়ে আরেকটা প্রাসঙ্গিক লেখা:

    'আল-জাজিরার গোলাম আযম' (http://www.nirmaaan.com/blog/rayhanrashid/6889 )

  10. মনি

    অবশ্যই। আমি একমত।

  11. siddiqui

    Most of the people who work for Newspaper and TV (  jouranlists are becoming extinct species ) could be purchased.Jamatis   made lots of money during the last 30 plus years  by getting capital fund as” Jakat”  from middle eastern countries and invested in Banks,Insurance,Hospitals etc. and  they can buy any one from any institutions like “Human Rights Watch”, Al Zazira, Economists , many more local newspapers, local reporters of international news media including Reuters. So we must be vocal and careful about these elements.

    1. mamun13

      please try to clarify intention and interest of those elements-for me( a common people).

মন্তব্য করুন