jannatul.ferdous-এর ব্লগ

প্রিন্ট প্রকাশনা

ফেলানি হত্যার বিচারে প্রহসন মূলক রায়ের বিরুদ্ধে গন অবস্থান

লিখেছেন: jannatul.ferdous

ফেলানি রা ফেলনা ই তো , তাই না ? ফেলানি তো আর লাখ টাকা দামের ভারতীয় লেহেঙ্গা নয় ,ফেলানি তো আর “আশিকি -২ ” মুভি নয় ,ফেলানি তো আর হিন্দি সিরিয়ালের কোনো অপরূপা নায়িকাও নয় যে তার জন্য আপনার মন কাঁদবে-ফেলানি খুবই সাধারণ ,খুবই গরীব একটা মেয়ে ,যে ভ…ারতীয় বি এস এফ বাহিনীর নির্মমতার শিকার। না না , কোনো সিরিয়ালের নায়িকা প্রেমিকের কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার কাহিনী শুনাচ্ছি না , একটি জ্বলজ্যান্ত মানুষের মানবতার কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার কাহিনী শুনাচ্ছি – এ কাহিনী আপনার শুনতে ইচ্ছা করবে না ,কারণ এটা “আশিকি -২ ” এর নায়িকার মৃত্যুকাহিনী না , এটা আপনার “গোপী ” সিরিয়ালের নায়িকার ঘর ভাঙার কাহিনী না। এটা একটা সীমান্তহত্যার কাহিনী ,এটা কাঁটাতারে ঝুলে থাকা মানবতার কাহিনী। ফেলানি আমার কিংবা আপনার মতই একটা মানুষ। জীবনের নির্মম বাস্তবতা ছোট্ট মেয়েটিকে বাধ্য করেছিল কাঁটাতারের বেড়ার উপর দিয়ে বাবার সাথে সীমান্ত পার হতে। হয়ত একটু আগেও মেয়েটির চোখে খেলা করছিল এক মুঠো ভাত পেটপুরে খাওয়ার স্বপ্ন , হয়ত মেয়েটি বাসায় মাকে বলে গিয়েছিল বাবার সাথে যাচ্ছে ,তাড়াতাড়ি ই ফিরে আসবে। হয়ত কাঁটাতারের বেড়ায় ওঠার সময়ও কিশোরী মেয়েটির চোখেমুখে খেলা করছিল অনাগত কোনো দিনের স্বপ্ন। কিন্তু কাঁটাতারের উপরে থাকা অবস্থায় একটি বুলেটের আঘাতে থেমে যায় সব স্বপ্ন ,থেমে যায় এক মুঠো ভাতের জন্য কিশোরী ফেলানীর জীবনযুদ্ধ। পরনের লাল সোয়েটারটি আটকে যায় ভারত – বাংলাদেশ সীমান্তের কাঁটাতারে। ঝুলতে থাকে ফেলানীর মৃতদেহ , ঝুলতে থাকে মানবতা , ঝুলতে থাকে বাংলাদেশ। অনেক অনেক অপেক্ষার পর অবশেষে ভারতে বিচার শুরু হয় ফেলানীর খুনী বি এস এফ সদস্য অমিয় ঘোষের। কিন্তু বিচারের রায়ে আর একবার ধর্ষিত হয় বাংলাদেশ , আর একবার ধর্ষিত হয় ন্যায়বিচার নামক বস্তুটি – ফেলানীর খুনী পেয়ে যায় বেকসুর খালাস ! কি ভাই – বোনেরা , মন একটুও কাঁদল – নাকি গোপীর কি হবে আজকের পর্বে সে চিন্তায় এতটাই অস্থির আপনি যে এতক্ষণ কি বললাম কিছু শুনলেন ই না ? মানছি আমাদের মুক্তিযুদ্ধে ভারত আমাদের অনেক সাহায্য করেছিল – ১৯৭১ এ ভারতের ভূমিকার জন্য আমরা কৃতজ্ঞ থাকব ভালো কথা , কিন্তু সেই কৃতজ্ঞতার প্রকাশ কি রক্ত দিয়ে করতে হবে ? নিজেদের আত্মপরিচয় কে নিজেরা গলা টিপে হত্যা করে করতে হবে । আসুন ফেলানী হত্যা এবং হত্যাকারীর প্রহসনমূলক রায়ের প্রতিবাদে আজ থেকে বর্জন করি ভারতীয় সকল পণ্য। বর্জন করি স্টার প্লাস , স্টার জলসা , সনি , লাইফ ওকে , স্টার ওয়ান , ফেয়ার এন্ড লাভলী , ভারতীয় শাড়ি – গয়না – কসমেটিক্স – লেহেঙ্গা সব কিছুকে। আসুন না মোবাইলের রিংটোন থেকে ” শুন রাহা হ্য না তু ” মিউজিকটা সরিয়ে দিয়ে ” জয় বাংলা বাংলার জয় ” টা সেট করি । আসুন না ” চেন্নাই এক্সপ্রেস ” দেখতে ব্যয় করা সময়টা গেরিলা দেখার পিছনে ব্যয় করি । ফেলানী হত্যাকারী ভারতের থেকে আসুন একসাথে সবাই মুখ ফিরিয়ে নেই। একটিবার নেমে আসুন রাজপথে – ৯ আগস্ট সোমবার ভারতীয় হাই কমিশনের সামগণবস্থানে যোগ দিন। আসুন একবার জানিয়ে দেই – “আমার মাটি আমার মা – ভারত , পাকিস্তান কোনোটাই হবে না। ” আসুন বাংলার জয়ধ্বনি কন্ঠে তুলে নেই। আসুন জানিয়ে দেই – ” আমার সোনার বাংলা , আমি তোমায় ভালোবাসি। “
জয় বাংলা , জয় বঙ্গবন্ধু । জয় প্রজন্ম , জয় তারুন্য , জয় শাহবাগ । জয় হোক মুক্তিযুদ্ধের , জয় হোক স্বাধীনতার

এ লেখার লিংক: http://projonmoblog.com/jannatul-ferdous/22057.html



মন্তব্য করুন