বনলতা সেন-এর ব্লগ

প্রিন্ট প্রকাশনা

সংজ্ঞা

লিখেছেন: বনলতা সেন

 

আফরোজের অফিস মতিঝিল। তাকে মিরপুর থেকে বাসে যেতে হয়। কষ্টকর বাস জার্নি সে উপভোগ করে শুধু একটি কারণে। একটি মেয়ে প্রতিদিন একই সময়ে এই বাসে করে ফার্মগেট নামে। মেয়েটিকে তার কাছে ভাল লাগে। কেন ভাল লাগে তা সে বুঝতে পারে না। মেয়েটি বোরকা নেকাব পড়ে বাসে উঠে। তার চেহারাও কোনদিন দেখেনি। শুধু মায়াময় দুটি চোখ দেখা যায়।

মেয়েটি বড় বড় কাঁজল টানা চোখে যেদিন তার দিকে প্রথমবার তাকিয়েছিল সেদিনই তার মনে হয়েছিল একজন মানুষের চোখ এত সুন্দর হয়? লাইট ব্রাউন কালারের চোখ। এরপর প্রায়ই মেয়েটির সাথে দেখা হয় এই বাসে। সে মুগ্ধ নয়নে মেয়েটির চোখ কিছুক্ষণ পর পর দেখার চেষ্টা করে। প্রচন্ড ভিরে কখনও বা দেখেও ফেলে। সে অনেক ভেবেছে এটি কি ভালবাসা? আবার সে নিজেকেই উত্তর দিয়েছে এটি হয়তো ভালবাসা হয়তো ভালবাসা নয়। তবে সে মনে মনে স্বীকার না করে পারে না যে সে এই মেয়েটিকে দেখার জন্যেই মিরপুর ছেড়ে অফিসের কাছাকাছি কোথাও চলে যাচ্ছে না। তার একদিন মনে হয়েছিল সেও একবার ফার্মগেট নেমে দেখে যে মেয়েটি কোথায় যায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোন প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেনি। কেন করেনি সেটা তার কাছে দুর্বোধ্য। একদিন প্রস্তুতি নিয়েওছিল কিন্তু তার মনে হয়েছে ‘কি দরকার ফালতু কাজের?’ মেয়েটি বাসে উঠার পর তার একরকম ভাললাগর অনুভুতি হয়। যা ফার্মগেট পর্যন্ত থাকে। এরপর আর সেই অনুভুতিটি হয় না। তার ধারনা কোনদিন যদি মেয়েটি ফার্মগেটে না ও নামে তবু ও তার ভাললাগার অনুভুতি ফার্মগেট পর্যন্তই থাকবে।

আজও সে অপেক্ষা করছে মেয়েটি কখন বাসে উঠবে। মেয়েটি উঠে দশ নম্বর থেকে। দশ নম্বরে বাস থামার পর সে আগ্রহ নিয়ে তাকেয়ে থাকে দরজার দিকে। আজ মহিলা সিট এখনও একটা খালি মনে হয় মেয়েটা সিট পাবে। কিন্তু মেয়েটি আজ উঠে না। বরং মহিলা সিট থাকা স্বত্তেও একটি মেয়ে তার পাশে এসে বসে। মেয়েটি শাড়ি পড়া। কিছুক্ষণ পরেই সে বুঝতে পারে এই তো সেই মেয়ে! আজ সে বোরকা পড়েনি। বাস ভর্তি মানুষের ভিড়েও সে দেখতে পায় এই তো সেই লাইট ব্রাউন কাঁজল টানা চোখ। একেই হয়তো ইংরেজিতে লিকুইড আই বলে। শ্যামলা মেয়েটির চেহারা খুব মিষ্টি। একটু পর পর গালে টোল ফেলে হাসছে। কি অপুর্ব দৃষ্য। কিন্তু আফরোজের কেন জানি ভাল লাগে না। যে ভাল লাগার অনুভুতি তাকে এতদিন আবেশিতকরে রেখেছিল তা যেন আর প্রভাব ফেলছে না। মেয়েটির চোখ তাকে খুব আকর্ষন করতো কিন্তু এখন মেয়েটির রূপ তাকে কেন আকর্ষন করছে না তা সে বুঝতে পারছে না। আসলে ভাল লাগার কোন সংগা যে নেই তা সে আজ উপলব্ধি করছে। সে বন্ধু জুবায়েরকে ফোন করে।

‘দোস্ত আমি মিরপুরের ফ্লাটটা ছেড়ে দিচ্ছি। তুই একটা ফ্লাট দেখেছিলি না আরামবাগে ওটায় যাবো। তুই কথাবার্তা ঠিক কর। দুজনে আপাতত একসাথে থাকবো।’

‘যাক তোর মতি ফিরলো। আমি সব ঠিক করছি। টেনশান নিস না।’

আফরোজ আজ বিরক্তি নিয়ে অপেক্ষা করছে বাস কখন মতিঝিল পৌঁছুবে।

 

 

প্রজন্মে এটি আমার প্রথম পোস্ট। আশাকরি সবার হেল্প পাবো।:)

এ লেখার লিংক: http://projonmoblog.com/bonolota_sen/2533.html

 34 টি মন্তব্য

(ফোনেটিক বাংলায়) মন্তব্য করুন

  1. আজাদ মাষ্টার

     পড়ে বুঝলাম নারীর মতো কোন কোন  পুরুষের মনোজগৎ বেশী জটিল কিসিমের হতে পারে । আসলে না প পাওয়ার কিংবা অধরার মধ্যেও একধরণের তৃপ্তিবোধ কাজ করে কোন জিনিস সহজে পেয়ে গেলে অনেক সময় ফ্রাস্তেসন চলে আছে ।

    1. বনলতা সেন

      মনস্ততত্বের কোন জেন্ডা্র নেই বলেই জানি।হুম আমি এটাই বলতে চেয়েছি যে না পাওয়ার মধ্যেও অনেক পাওয়া আছে যা পেলে উপভোগ করা যায় না।ধন্যবাদ।

  2. শিমূল

    না চাহিতে যারে পাওয়া যায়…..।বিয়ন্ড সুন্দর 

    1. বনলতা সেন

      পড়ার জন্যে ধন্যবাদ শিমুল ভাই।

  3. ইমরান এইচ সরকার

    আরে আপনি তো অনেক ভাল লিখেন। দারুন লেগেছে গল্পটা।
    বলেন কি সহযোগীতা লাগবে আপনার? বাসা খুজে দিতে হবে? :p

    1. বনলতা সেন

      পড়ার জন্যে ধন্যবাদ।না বাসা খুঁজে দিতে হবে না! 

  4. স্বপ্নকথক

    আমার কাছাকাছি একটা অভিজ্ঞতা আছে। :P কইলে আমার উনি পিডাইতে পারে। তাই আপাতত আপনার গল্প সুন্দর হইছে বলেই ক্ষান্ত হইলাম। :D

    1. বনলতা সেন

      সেটাই ভাল। ক্ষেমা দেয়াই ভাল যদি পিটা খাইবার সম্ভাবনা থাকে!!ধন্যবাদ পড়ার জন্যে।

  5. অনিমেষ রহমান

    স্বাগতম নাতিন!!

    1. বনলতা সেন

      থেঙ্কু দাদা!হোস্ট তো আপনি!

      1. অনিমেষ রহমান

        না আমিও আপনার মতো সাধারন ব্লগার!

        1. বনলতা সেন

          সাধারণ অসাধারণ বুঝি না তবে আপনি আমার গুরুজী।

          1. অনিমেষ রহমান

            আমরা হইলাম সহব্লগার! গুরু-শিষ্য তো অনেক আগেই শেষ।আপনার লেখার ভক্ত আমি-বিশেষ করে গল্পগুলো।অসাধারন।

  6. দুরন্ত..

    ভাল লাগল

    1. বনলতা সেন

      ধন্যবাদ।

  7. জটিল বাক্য

    সাদাসিদে কাহিনীর গল্প ভালো লেগেছে, ভাষা বিন্যাসের মুনশিয়ানা আছে।—————————–

    1. বনলতা সেন

      পড়ার জন্যে ধন্যবাদ ভাইজান।

  8. নিভৃত স্বপ্নচারী

    ভাল লেগেছে গল্প।

    1. বনলতা সেন

      ধন্যবাদ স্বপ্নচারী।

  9. তাহিয়া তাবাসসুম তৃনা

    বাহ !!!! সুন্দর হয়েছে তো !!!

    1. বনলতা সেন

      ধন্যবাদ।

  10. সাজেদুর

    সুন্দর!!! অনুভুতিটা বড়ই সুন্দর !!!

    1. বনলতা সেন

      ধন্যবাদ।

  11. salahuddin aziz 1

    bottom line, mysterious. hope in next story, you may start , telling the bottom line of current story. word construction and running between line and time found fantastic.

    1. বনলতা সেন

      থ্যাংকস। আমি এই স্টোরি শেষ করে ফেলেছি। এটা এখানেই শেষ। ছোটগল্প কিনা।

  12. salahuddin aziz 1

    it might look odd but feel to ask you, what is the phillosopy of this story from your end. it look very fine at small distance, but little closure it become fake. what a pity ?

    1. বনলতা সেন

      গল্প লিখতে যে ফিলসফি লাগে সেটাই জানতাম না! গল্পকে পাঠক তার নিজ মন মতো গ্রহণ করনে এখানে লেখক কি উদ্দেশ্যে লিখলেন সেটা গৌণ হয়ে যায়! গল্পটায় কোন মোরাল শিক্ষা যেহেতু নেই।

      তবে আমি লিখৈছি শুধুই নিজের জন্যে। আমি ইচ্ছা করলেই গল্পটাতে আরো কিছু এড করতে পারতাম। আর এখানেই লেখকের সার্থকতা। পাঠক তো শুধু পড়বে!

  13. salahuddin aziz 1

    it is absolutely a query from my end. now I understand. I am sorry , if my wording made wrong sense.

    1. বনলতা সেন

      প্লিজ স্যরি বলার কিছুই হয় নি!! :)

  14. salahuddin aziz 1

    mollar dour mosjid porjonto. amar moto bok molla ra ektu phillosopy kuje ohetik sobkhane. maje modde golper chorotre dhuke pori, ar Kay koi kori. obseshe sorry chawer koron hoini sune santi pailum. bye.

    1. বনলতা সেন

      :)

  15. দুরন্ত পথচারী

    খুব ভালো হয়েছে গল্পটা।

    1. বনলতা সেন

      :)

  16. Dark Prince

    কিছু জিনিস দুরে থাকলেই সুন্দর লাগা ।না পাওয়ার কষ্ট টাকে ভালবাসা মনে হয়।যখন পাওয়া যায় তখন আর সেই অনুভুতিটা থাকে না।ভালবাসার সংজ্ঞা কিন্তু আলাদা।না পাওয়ার বেদনা ভালবাসা হতে পারে না।আর লেখা সম্পর্কে মন্তব্য হলো একটু ছেলেমানুষি থাকা সত্বেও অসাধারন।আপনাকে দিয়ে হবে।চালিয়ে যান

মন্তব্য করুন