আলী হোসেন বিদ্যুৎ-এর ব্লগ

প্রিন্ট প্রকাশনা

কালের প্যাচাঁল!

লিখেছেন: আলী হোসেন বিদ্যুৎ

734151_10200657550618530_322338641_nএক সন্ধ্যায়,সাহস করে নিজের ফেইজবুক প্রফাইলে লিখেই ফেললাম আমি ব্লগার,ঘন্টা দু’য়েক পরে আমার মামা মন্তব্য করলেন-”অধপতন হয়েছ,নাস্তিক হয়েছ!” আমিতো আকাশ থেকে পরলাম।আমি কেন নাস্তিক হব?আমার দাদা আলেম,তার জীবনের প্রায় শেষ প্রযন্ত ইমামতি করেছেন।তিনি কম পক্ষে ৩-৪টি মসজিদ তৈরীর উদ্যোগতা।তাব বাবাও আলেম,আমার মেঝ চাচা ইমামতি করেছেন বহু বছর।তার মেঝ ছেলে হাফেজ ও ইমাম। আমার ছোট ভাই মাদ্রাসায় পড়ছে।মোটামুটি পূর্বপুরুষ থেকে আমার পরিবারে আলেম আছে।আমি কি না নাস্তিক?

এক দিন মা ফোন করলেন,”তুমি না কি কিসব লিখছ?এসর লেখা ঠিক না,সবাই বলছে নাস্তিক টাস্তিক।ওসব আর করনা।”আমি শুধু অবাক হয়ে শুনলাম।
“তোমার সাথে কথাই বলা যারে না,তোমার মুখ থেকে ব্লগার ব্লগার গন্ধ আসছে।”এক বন্ধু বলল।কিন্তু,মঝার বিষয়,সেই বন্ধুই পরদিন ফোন করে জানতে চাইল,”ব্লগ এবং ব্লগার মানে কি?”

আরও কয়েক জনই ফোন করে ও সরাসরি ব্লগ সম্পর্কে জানতে চেয়েছে?আবার বেগম জিয়ার মত অনেকেই নিজেরা বানিয়ে নিয়েছেন,ব্লগার মানে নাস্তিক।আমার প্রশ্ন হলো,আস্তিকতা মানে কি?-মিথ্যা বলা,গাড়ি ভাঙ্গা,জীবিত মানুষ পুড়িয়ে মারা,পুলিশের অস্র কেরে নেওয়া,বেপর্দা মহিলাদের দিয়ে রাস্তায় আগুন দেওয়া,শিশুর চোখে বোমা মারা,মসজিদের কার্পেটে আগুন দেয়া?

যারা ব্লগ কিংবা ব্লগার কি জানেন না,জানার মত দক্ষতা টুকুও নেই তারাই কেবল ব্লগার নাস্তিক ব্লগার নাস্তিক বলে চেচায়।আসলে সে কখনো ব্লগ দেখেইনি।বাইরে ব্লগার বললে হয়তো আমার জীবনই বিপন্ন হওয়ার সম্ভাবনা আছে।
তাদের জন্য আর কি বলব?কিন্ত মাহামু-চুদুর-বুদুরের মত জ্ঞানপাপিদের জন্য উইকিপিডিয়ার থেকে ধার করে দিচ্ছি-
ব্লগ শব্দটি ইংরেজ Blog এর বাংলা প্রতিশব্দ, যা এক ধরণের অনলাইন ব্যক্তিগত দিনলিপি বা ব্যক্তিকেন্দ্রিক পত্রিকা। ইংরেজি Blog শব্দটি আবার Weblog এর সংক্ষিপ্ত রূপ। যিনি ব্লগে পোস্ট করেন তাকে ব্লগার বলার হয়। ব্লগাররা প্রতিনিয়ত তাদের ওয়েবসাইটে কনটেন্ট যুক্ত করেন আর ব্যবহারকারীরা সেখানে তাদের মন্তব্য করতে পারেন। এছাড়াও সাম্প্রতিক কালে ব্লগ ফ্রিলান্স সাংবাদিকতার একটা মাধ্যম হয়ে উঠছে। সাম্প্রতিক ঘটনাসমূহ নিয়ে এক বা একাধিক ব্লগার রা এটি নিয়মিত আপডেট করেন।
বেশিরভাগ ব্লগই কোন একটা নির্দিষ্ট বিষয়সম্পর্কিত ধারাবিবরণী বা খবর জানায়; অন্যগুলো আরেকটু বেশিমাত্রায় ব্যক্তিগত পর্যায়ের অনলাইন দিনপত্রী/অনলাইন দিনলিপিসমূহ। একটা নিয়মমাফিক ব্লগ লেখা, ছবি, অন্য ব্লগ, ওয়েব পেজ আর এবিষয়ের অন্য মাধ্যমের লিংকের সমাহার/সমষ্টি। পাঠকদের মিথষ্ক্রিয়াময় ছাঁচে মন্তব্য করার সুবিধে-রাখা বেশিরভাগ ব্লগের একটা গুরুত্বপূর্ণ দিক। প্রায় ব্লগই মূলত লেখায় আকীর্ণ, কিছু কিছু আবার জোর দেয় শিল্প (আর্ট ব্লগ), ছবি (ফটোব্লগ), ভিডিও (ভিডিও ব্লগিং), সঙ্গীত (এমপিথ্রিব্লগ) আর অডিওর (পডকাস্টিং) ওপর। মাইক্রোব্লগিং-ও আরেকধরনের ব্লগিং, ওটায় খুব ছোট ছোট পোস্ট থাকে। ডিসেম্বর, ২০০৭-এর হিসেবে, ব্লগ খোঁজারু ইঞ্জিন টেকনোরাট্টি প্রায় এগারো কোটি বার লাখেরও বেশি ব্লগের হদিশ পেয়েছে।

পাশাপাশ,আস্তিকতা ও নাস্তিকতার সংঙ্গা,ভালো করে জেনে ও বুঝে প্রচার করার জন্য অনুবোধ রইল।-
নাস্তিক্যবাদ (ইংরেজি ভাষায়: Atheism; অন্যান্য নাম: নিরীশ্বরবাদ, নাস্তিকতাবাদ) একটি দর্শনের নাম যাতে ঈশ্বর বা স্রষ্টার অস্তিত্বকে স্বীকার করা হয়না এবং সম্পূর্ণ ভৌত এবং প্রাকৃতিক উপায়ে প্রকৃতির ব্যাখ্যা দেয়া হয়। আস্তিক্যবাদ এর বর্জন কেই নাস্তিক্যবাদ বলা যায়।[১] নাস্তিক্যবাদ বিশ্বাস নয় বরং অবিশ্বাস এবং যুক্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত। বিশ্বাসকে খণ্ডন নয় বরং বিশ্বাসের অনুপস্থিতিই এখানে মুখ্য।[২]
ইংরেজি ‘এইথিজম’(Atheism) শব্দের অর্থ হল নাস্তিকক্য বা নিরীশ্বরবাদ। এইথিজম শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে গ্রিক ‘এথোস’ (ἄθεος) শব্দটি থেকে। অর্থ্যৎ,যে বা যারা সৃষ্টিকর্তাকে বিশ্বাস করে না তারা। কিন্তু আমাদের দেশে সব ব্লগারকেই নাস্তিক বলা হচ্ছে।
ব্লগে লেখাই যেন নাস্তিকতা।আমরা সাধারন ব্লগাররা কেন নাস্তিক্যবাদের বলি হব,কেন স্বাধীনতার পক্ষের লোকেরা নাস্তিক্যতার দায় নেবে?আপনি নাস্তিক বলে অন্যের বিশ্বাসের প্রতি আঘাত দেওয়ার কোন অধিকার আপনার আমার বা কারোরই নেই। সে আপনি জামাতেরই হোন আর জাগরণ মঞ্চেরই হোন।যারা ধার্মিক তাদেকে সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে ধর্ম পালনের পরিবেশ তৈরী করার জন্য সুনাগরিক হিসেবে আপনার আমার সকলের সামাজিক,মানবিক ও ধার্মিক দ্বায়িত্ব। কিন্তু যারা নাস্তিকতা,ব্লগার ও শাহাবাগ প্রজন্ম আন্দলন গুলিয়ে ফেলেছেন।তাদেরকে বলি স্বাধীনতার পক্ষে আর খালেদা জিয়ার বিপক্ষে গেলেই নাস্তিক হয়ে যায় এই ধারণা যারা করেন।তারা,খালেদাবাদ/মাহামু-চুদুরবাদের লোক।

ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে,জাতিকে শিশুভাবা বন্ধ করুন।এই শিশু জাতিই একদিন কাপড় খুলে মাঠে ছেড়ে দেবে।ভাঙা সেই স্যুটকেসটা যত্ন করে রাখবেন!অনেক বিভ্রান্তি ছড়িয়েছেন,অনেক কটু কথা বলেছন।নাস্তিক বলেছন,

আপনি ফালুর সাথে কোন সম্পর্ক হাজ্জে গিয়েছন ধর্ম সেটা জানতে চায়? ঘোলা পানিতে অনেক মাছ শিকার কছেন।

যাদের জীবন নিয়ে ছিনিমিন খেলছেন তাদের ভোটেই ক্ষমতা নিশ্চত হয়,নাকি অন্যভাবে কিছু ঠিক করেছন?

স্বাধীনতার পক্ষে বলবই,সেটা কার পক্ষে পড়ল কার বিপক্ষে পড়ল সেটা বড় কথা না।
মনেরাখবেন,ইতিহাস আমাকে,আপনাকে বা কাউকেই ক্ষমা করে না,করবেও না।

এ লেখার লিংক: http://projonmoblog.com/ali-hossain-bidyut/9807.html

 1 টি মন্তব্য

  1. manik

    আস্তিকতা মানে কি?-মিথ্যা বলা,গাড়ি ভাঙ্গা,জীবিত মানুষ পুড়িয়ে
    মারা,পুলিশের অস্র কেরে নেওয়া,বেপর্দা মহিলাদের দিয়ে রাস্তায় আগুন
    দেওয়া,শিশুর চোখে বোমা মারা,মসজিদের কার্পেটে আগুন দেয়া?স্বাধীনতার পক্ষে বলবই,সেটা কার পক্ষে পড়ল কার বিপক্ষে পড়ল সেটা বড় কথা না।

মন্তব্য করুন